সোমবার, ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ ইং, ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সোমবার, ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ ইং, ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সোমবার, ২৩শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

করোনা মহামারিতে এবার ব্যতিক্রমী হজ উদযাপন

করোনা মহামারিতে এবার ব্যতিক্রমী হজ উদযাপন

সৌদি আরবে বসবাসকারী বিভিন্ন দেশের অধিবাসী ও দেশটির নাগরিকদের সমন্বয়ে ১০ হাজার মানুষ এবারের হজ পালনে অংশ নিলেও প্রস্তুতিতে কোনো ধরনের কমতি রাখছেন না দেশটির কর্তৃপক্ষ।

এবারের সীমিত হজ আয়োজনে সৌদি আরব ছাড়াও ১৬০ দেশের নাগরিক অংশগ্রহণ করছেন।

রবিবার থেকে হজে অংশ নেয়াদের ৭ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনের মধ্য দিয়ে হজের আনুষ্ঠানিকতার প্রথম ধাপ শুরু হয়েছে। কোয়ারেন্টাইন শেষে ৩ জিলহজ মক্কায় এসে আরও ৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন করবেন তারা।

এর পর ৮ জিলহজ বাদ ফজর রওয়ানা হবেন মিনায়। মিনা যাত্রার মধ্য দিয়ে হজের মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। ১২ জিলহজ পর্যন্ত মিনা, মুজদালিফা, আরাফাতের ময়দান ও মক্কায় হজের বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে হয়।

চলতি বছর বৈশ্বিক মহামারি করোনার কারণে হজযাত্রীদের স্বাস্থ্যগত নিরাপত্তার স্বার্থে বেশ কিছু নতুন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। ওই পদক্ষেপের আওতায় প্রত্যেক হজযাত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে এবং প্রয়োজনীয় টিকা দেয়া হয়েছে।

এদিকে, রবিবার ভোর থেকে মক্কার নির্দিষ্ট এলাকাসহ মিনা, মুজদালিফা ও আরাফাতে সাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এসব স্থানে অনুমোদিত ব্যক্তি ছাড়া কেউ প্রবেশ করলে তাকে ১০ হাজার সৌদি রিয়াল জরিমানা করা হবে। এসব এলাকার প্রবেশ পথে কড়া নিরাপত্তা ছাড়াও আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যরা টহল দিচ্ছেন। মিনা, মুজদালিফা ও আরাফাতের প্রবেশপথে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। জিলহজ মাসের চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ২৯ বা ৩০ জুলাই (৮ জিলহজ) থেকে হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে এবং ৫ দিন চলবে।

হজের কার্যক্রম শেষ না হওয়া পর্যন্ত ঘোষিত বিধিনিষেধ জারি থাকবে। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে হজযাত্রীদের মধ্যে যাতে ভাইরাস ছড়িয়ে না পড়ে সে জন্য এ ধরনের কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

সৌদি আরবের হজ ও উমরা মন্ত্রণালয় নিবন্ধিত হজযাত্রীদের প্রয়োজনীয় সামগ্রী পাঠিয়ে দিয়েছে। এসব সামগ্রীর বাইরে অন্য কিছু বহন করতে পারবে না হজযাত্রীরা।

প্রয়োজনীয় সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে- চিপলাগানো একটি স্মার্ট ব্রেসলেট, দুই সেট ইহরামের কাপড়, ব্যক্তিগত প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি, জামারাতে নিক্ষেপের জন্য জীবাণুমুক্ত কঙ্কর, জুতা, ফোনের চার্জার, জায়নামাজ, জুতার ব্যাগ, হাতব্যাগ এবং হজের বিধিবিধানসহ প্রাসঙ্গিক বই-পত্র ও স্বাস্থ্যবিধি সম্বলিত হজ নির্দেশিকা।

এদিকে, যাতায়াতের জন্য প্রতি ২০ জন করে একটি দল করা হয়েছে। প্রত্যেক বাসে ২০ জন করে হজযাত্রী চলাফেরা করবেন।

মিনা, জামারাত, মুজদালিফা ও আরাফাতের ময়দানে যে অংশে হাজিরা অবস্থান করবেন, সেসব স্থান এরইমধ্যে জীবাণুমক্ত করা হয়েছে। মসজিদের হারামের ভেতরে ও বাইরের অংশে নামাজের কাতারে নামাজের সময় শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করার জন্য স্টিকার লাগানো হয়েছে।

হাজিরা এবার মিনার তাঁবুতে থাকবেন না। মিনার নির্দিষ্ট ভবনগুলোতে তারা অবস্থান করবেন। এ ছাড়া তাওয়াফের সময় কাবা শরিফ স্পর্শ ও হাজরে আসওয়াদে চুমো দেয়া যাবে না। নির্দিষ্ট দূরত্বে থেকে তাওয়াফ ও সায়ী সম্পন্ন করতে হবে। তাওয়াফের সময দেড় মিটার দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। নামাজের জামাতেও দূরত্ব বজায় রেখে দাঁড়াতে হবে। হজযাত্রীদের জন্য সবসময় মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক।

হজযাত্রীরা বাইরে থেকে কোনো খাবার বা পানীয় নিয়ে হজের রীতিনীতি পালন করতে পারবেন না। সব হাজির জন্য খাবার ও পানি কর্তৃপক্ষ সরবরাহ করবে।

কোরবানি সম্পন্ন করতে হবে ব্যাংকের মাধ্যমে। কোনো হজযাত্রী নিজে কোরবানির পশু ক্রয় কিংবা জবাই করতে পারবেন না। হজ ব্যবস্থাপনার সাথে জড়িত পরিবহন শ্রমিক, খাবার সরবরাহকারী ও স্বেচ্ছাসেবকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। হজযাত্রী ও হজ ব্যবস্থাপনার সঙ্গে জড়িতদের শরীরের তাপমাত্রা নিয়মিত পরীক্ষা করা হবে। কারও মাঝে করোনার লক্ষণ দেখা দিলে তাকে আইসোলেশনে পাঠানো হবে।

হারামাইন প্রেসিডেন্সি সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এবারের হজের খুতবা ৫ ভাষায় অনুবাদ করে সম্প্রচার করার। ভাষাগুলো হলো- ইংরেজি, ইন্দোনেশিয়ান, উর্দু, ফ্রেঞ্চ ও ফারসি।

সামর্থ্যবান নারী-পুরুষের জন্য জীবনে একবার হজপালন করা ফরজ।

হজের আনুষ্ঠানিকতার মধ্যে রয়েছে- ৮ জিলহজ জোহর থেকে ৯ জিলহজ ফজর পর্যন্ত ৫ ওয়াক্ত নামাজ মিনায় আদায় ও রাতযাপন। এটা সুন্নত আমল। ৯ জিলহজ আরাফাতে অবস্থান করা ফরজ। ওইদিন সূর্য অস্ত যাওয়ার পর আরাফাত থেকে মুজদালিফার উদ্দেশে রওয়ানা এবং মুজদালিফায় পৌঁছে মাগরিব ও এশার নামাজ এক আজানে দুই ইকামতে আদায় করা। মুজদালিফায় অবস্থান ওয়াজিব। মুজদালিফায় ফজরের নামাজ পড়ে কিছুক্ষণ অবস্থান শেষে মিনায় পৌঁছে বড় শয়তানের প্রতি ৭ পাথর নিক্ষেপ করা। তামাত্তু বা কিরান হাজি হলে হজের কোরবানি আদায় করা। মাথা মুণ্ডানো ও ইহরামমুক্ত হওয়া। ১০ জিলহজ থেকে ১২ জিলহজের মধ্যে মক্কায় গিয়ে (হজের ফরজ তথা রুকন) তাওয়াফে জিয়ারত করা।

জিলহজ মাসের ১১ তারিখে সূর্য দুপুরে পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়লে প্রথমে ছোট তারপর মেজ অতঃপর বড় শয়তানের প্রতি ৭ করে পরপর ২১টি পাথর নিক্ষেপ করা ওয়াজিব। ১০ ও ১১ জিলহজ দিবাগত রাত মিনায় অবস্থান করা সুন্নত।

১২ জিলহজ সূর্য দুপুরে পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়লে ১১ জিলহজের নিয়মে তিন শয়তানের প্রতি ২১টি পাথর নিক্ষেপ করে মক্কা মোকাররমার উদ্দেশে সূর্যাস্তের আগে মিনার সীমানা ত্যাগ করা। জিলহজ ১২ তারিখে মিনায় অবস্থান করে ১৩ জিলহজ ১১ ও ১২ জিলহজের মতো তিন শয়তানের প্রতি ২১টি কঙ্কর নিক্ষেপ করে মিনা ত্যাগ করা সুন্নত। কিন্তু ১২ জিলহজ মিনা ত্যাগ করা প্রচলন হয়ে গেছে। অতএব হজের কার্যক্রমে ১৩ তারিখের কথা তেমন আসে না।

শেয়ার করুন:Share on Facebook
Facebook
Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email

মন্তব্য করুন

মন্তব্য